গজনী অবকাশ কেন্দ্র– ঢাকার চিঠি অনুষ্ঠান

ভারত সীমান্তঘেঁষা উঁচু-নিচু পাহাড়বেষ্টিত এই পর্যটনকেন্দ্রে নৈসর্গিক দৃশ্য দেখতে শীতকালে নতুন বছরের শুরুতে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে ছুটে আসেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। গারো পাহাড় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপূর্ব এক লীলাভূমি। আর তাই শেরপুর জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা ঝিনাইগাতীর ঐতিহ্যবাহী গারো পাহাড়ের গজনী অবকাশের পাদদেশে অবস্থিত সারি সারি শাল, গজারি, সেগুনগাছ; ছোট-বড় মাঝারি টিলা, লতা-পাতার বিন্যাস, যা প্রকৃতি ও পর্যটনপ্রেমীদের মনে নিশ্চিত দোলা দিয়ে যাবে।

শেরপুর জেলা শহর থেকে মাত্র ৩০ কিলোমিটার দূরত্বে ১৯৯৩ সালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গজনী অবকাশ কেন্দ্রটি গড়ে তোলা হয়। ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের প্রায় ৯০ একর পাহাড়ি এলাকাজুড়ে এর অবস্থান। গড়ে ওঠার পর থেকেই প্রতিবছর ক্লান্ত জীবনের ব্যস্ততাকে পেছনে ফেলে অবসরে হাজারো পর্যটক ভিড় করেন এই গজনী অবকাশ কেন্দ্রে।

আজকের ঢাকার চিঠি অনুষ্ঠানে জানবো এই গজনী অবকাশ কেন্দ্র সম্পর্কে ।

নিয়মিত আমাদের অনুষ্ঠান শুনতে আমাদের সাথেই থাকুন ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট ।
https://bengali.rvasia.org/

এছাড়াও সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমাদের সাথে যুক্ত হতে ভিজিট করুন । 
Facebook: http://facebook.com/veritasbangla
YouTube: http://youtube.com/veritasbangla
Twitter:  https://twitter.com/banglaveritas
Instagram: http://instagram.com/veritasbangla

Add new comment

6 + 8 =