চাঁদপুকুর ধর্মপল্লীতে অনুষ্ঠিত হলো ডিকন বিপ্লব মাইকেল কুজুর এর যাজকীয় অভিষেক

বিপ্লব মাইকেল কুজুর এর যাজকীয় অভিষেক অনুষ্টান

গত ২২ জানুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দে, চাঁদপুকুর ধর্মপল্লীতে ডিকন বিপ্লব মাইকেল কুজুর যাজকপদে অভিষিক্ত হন। এই যাজকীয় অভিষেক অনুষ্ঠানে পৌরহিত্য করেন পরম শ্রদ্ধেয় বিশপ জের্ভাস রোজারিও এবং উপদেশবাণী রাখেন ঢাকা মহাধর্মপ্রদেশের আর্চবিশপ বিজয় এন. ক্রুজ।

খ্রিস্টযাগের শুরুতে বিশপ জের্ভাস রোজারিও নব-অভিষিক্ত যাজককে উদ্দেশ্য ক’রে বলেন, “যাজকত্ব হলো ঈশ্বরের আহ্বান। একজন ব্যক্তি স্বেচ্ছায় এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে মন্ডলির সেবায় এগিয়ে আসেন। সুতরাং সব ধরণের কাজের দায়-দায়িত্ব তাকেই বহন করতে হয়। একজন যাজকের সদ্ইচ্ছার উপর নির্ভর করে- জনগণ কীভাবে তাকে সহায়তা দিবেন।”

তিনি আরো বলেন, “নব-অভিষিক্ত যাজক বিপ্লব কুজুর চাঁদপুকুর ধর্মপল্লীর লক্ষণপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছে, তাকে তার জীবনাহ্বান বুঝতে সময় নিতে হয়েছে যদিও, তবুও ঈশ্বর তাকেই বেছে নিয়েছেন তাঁর কাজ করার জন্য। রাজশাহীর সন্তান হলেও সে সিলেট ধর্মপ্রদেশের নামে ঐশ দায়িত্ব পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে যাজকবরণ সংস্কার গ্রহণের মধ্যদিয়ে হয়ে উঠবেন জাতি-গোষ্ঠী, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে পৃথিবীর সকল মানুষের যাজক। অর্থাৎ যাজকীয় সেবাকাজ হলো সর্বজনীন।”

পরম শ্রদ্ধেয় আর্চবিশপ বিজয় এন. ক্রুজ উপদেশ সহভাগিতায় বলেন, “যাজকীয় জীবনের আহ্বান হল ঈশ্বরের একটি বিশেষ উপহার। আর ডিকন বিপ্লব কুজুর ঈশ্বরের কাছ থেকে সেই উপহার পেয়েছেন। তিনি ঈশ্বরের আহ্বানে সাড়া দিয়ে আজ  সম্পূর্ণভাবে নিজেকে নিবেদন করে প্রভুর দ্রাক্ষাক্ষেত্রে করার জন্য যাজকপদে অভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন।”

তিনি আরো বলেন, “একজন যাজক হলেন ঈশ্বরের মনোনীত বিনয়ী বিশ্বস্ত ও পবিত্র সেবক। ঈশ্বরের বিশেষ আর্শিবাদের পাত্র হলেন যাজক। তিনি মণ্ডলীর সেবা কাজে নিয়োজিত ও উৎসর্গকৃত। আজকের এই দিনে আমরা এই নতুন যাজক ও সকল যাজকের জন্য আপনারা প্রার্থনা করবেন যেন তারা যাজকীয় বিশ্বস্ত ও পবিত্র থেকে ভক্তবিশ্বাসীদের আধ্যাত্মিক যত্ন নিতে পারেন।”    

যাজকীয় অভিষেক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী খ্রীষ্টভক্তদের মধ্য থেকে মি: সেবাস্টিয়ান বলেন, “আমাদের ধর্মপল্লীর জন্য আজ একটি আশির্বাদের ও আনন্দের দিন কারণ আজ ডিকন বিপ্লব কুজুর যাজকপদে অভিষিক্ত হয়েছেন। আমি বিশ্বাস করি এই অভিষেক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে আমাদের ধর্মপল্লীর অনেক যুবকই ধর্মীয় জীবনে প্রবেশের জন্য উৎসাহ ও প্রেরণা লাভ করবে।”

শ্রদ্ধেয় পাল-পুরোহিত বলেন, “শ্রদ্ধেয় ফাদার বিপ্লব কুজুর এর যাজকীয় অভিষেক অনুষ্ঠানে আমি অনেক আনন্দিত ও ঈশ্বরের প্রতি কৃতজ্ঞ কারণ ঈশ্বর তাঁর অসীম আশির্বাদ এই ধর্মপল্লীর জন্য দান করেছেন। আমি কৃতজ্ঞতা ভরা অন্তরে পরম শ্রদ্ধেয় আর্চবিশপ বিজয় এন. ক্রুজ ও আমাদের ধর্মপদেশের বিশপ জের্ভাস রোজারিও’কে ধন্যবাদ জানাই । একই সাথে ধন্যবাদ জানাই সকল ফাদার ব্রাদার, সিস্টার ও খ্রীষ্টভক্তদের কারণ আপনাদের উপস্থিতি এই অনুষ্ঠানটি আরও আনন্দঘন ও সার্থক হয়ে উঠেছে।”

নব অভিষক্ত যাজক তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, “আমি উপলব্ধি করছি ঈশ্বরের ভালবাসা ও আমার জন্য তাঁর পরিকল্পনা। আমি দুর্বল হওয়া সত্ত্বেও তাঁর ভালবাসা ও করুণার স্পর্শ আমাকে তাঁর যাজক করে তুলেছেন। সত্যিই আজ আমি কৃতজ্ঞ ও আনন্দিত।”

বিপ্লব মাইকেল কুজুর ১০ নভেম্বর ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে, চাঁদপুকুর, “শান্তিরাজ খ্রিস্ট” চার্চের অর্ন্তগত, লক্ষণপুর গ্রামে, আদিবাসী উরাঁও পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা- মৃত: বুধরাম কুজুর এবং মা- বুধনি তিগ্যা।

ছয় ভাই-বোনের মধ্যে বিপ্লব চতুর্থ সন্তান। ফাদার বিপ্লব লক্ষণপুর গ্রামের প্রথম যাজক এবং চাঁদপুকুর মিশনের দ্বিতীয় যাজক। আমরা ফাদার বিপ্লব মাইকেল কুজুরের মঙ্গল জীবন কামনা করি।

পবিত্র খ্রষ্টিযাগের পর একটি সর্ম্বধনা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে নব অভিষিক্ত যাজক বিপ্লব কুজুর সহ বিশপদ্বয়কে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানো হয়।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে, পবিত্র খ্রীষ্টযাগে ৪৮ জন ফাদার, ৩২ জন সিস্টার ও প্রায় ৮০০ জন খ্রীষ্টভক্ত অংশগ্রহণ করেন। - ফাদার সুরেশ পিউরীফিকেশন

Add new comment

6 + 7 =