পোপ ফ্রান্সিস বলেছেন “ধর্ম এবং বিজ্ঞান পরস্পর বিরোধী নয়”

গত ২-৩ জুলাই ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, দক্ষিণ ইটালির আব্রোজ্জো নামক স্থানে অনুষ্ঠিত আর্ন্তজাতিক বিজ্ঞান সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীদের উদ্দেশ্যে এক ভিডিও বার্তায় পোপ এই কথা বলেছেন। “ধর্ম এবং বিজ্ঞান কোনোভাবেই একে অপরের বিরোধী নয়।”

এই আর্ন্তজাতিক বিজ্ঞান সম্মেলনের আলোচ্য বিষয় ছিলো, “বিজ্ঞান- শান্তির জন্য।” পোপ তাঁর ভিডিও বার্তার শুরুতেই বলেন, “প্রিয় এবং সম্মানীত বিজ্ঞানীগণ, আপনাদের এই বৈঠক মানবতার জন্য একটা বড় আশার দান। আজকের এই সময়ের পূর্বে আমরা অবগত হয়নি যে বিজ্ঞানের গবেষণা আধুনিক সমাজের চ্যালেঞ্জগুলোর মুখোমুখি হতে পারে। আমি অত্যন্ত খুশি যে, তেরামো ধর্মপ্রদেশীয় সমাজ এমন একটি বৈঠকের আয়োজন করেছেন- যা প্রমাণ করছে যে, বিজ্ঞান এবং ধর্ম কোনোভাবে এবং অবশ্যই একে অপরের বিরোধী নয়।”

“বিজ্ঞান- শান্তির জন্য” শিরোনামে এই বৈঠক তেরামো-আত্রি ধর্মপ্রদেশের সহায়তা নিয়ে তেরামো বিশ্ববিদ্যালয় ও সাধু গাব্রিয়েল-দুঃখীদের রাণী বেদীমন্ডপ চার্চ আয়োজন করেন। এই চার্চটি সাসেস্যা দ্যা’ইটালিয়া পর্বতমালার পাদদেশে অবস্থিত এবং যেখানে অবস্থিত সাধু গাব্রিয়েলের সমাধিস্থান- যা পর্যটকদের জন্য একটি আকর্ষনীয় স্থান। এই পবিত্র খ্রিস্ট মন্ডলি গত ফেব্রুয়ারির ২৭ থেকে আগামী ২০২২ খ্রিস্টাব্দের ২৭ ফেব্রুয়ারি পযর্ন্ত গাব্রিয়েলকে সাধু শ্রেণিভূক্ত করার শতবর্ষের জুবিলী পালন করছে।

পোপ ফ্রান্সিস ভিডিও বার্তায় তাঁর ,“সবাই ভ্রাতৃসম” (Fratelli Tutti)  সর্বজনীন পত্রের দিকে ইংগীত দিয়ে বলেন, এটা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ যে, বিজ্ঞানীরা সবার মঙ্গলের জন্য কাজ করছেন।

তিনি বলেন, “এটা ঝুঁকিপূর্ণ যদি বিজ্ঞান শুধু এককভাবে তার দৃষ্টিকোণ দিয়ে মানুষের জীবন, সমাজ এবং বিশ্বকে দেখার চেষ্টা করে।” এই বিজ্ঞান প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে পোপ করোনা ভাইরাস মহামারির বিষয়টি নিয়ে বৈজ্ঞানিক সমাজ চিন্তায় যে নতুনত্ব এনেছেন তা উল্লেখ করে বলেন, “ সুরক্ষা, পরিষেবা ও স্বাস্থ্য দপ্তরগুলো” মানুব-জীবন সম্পর্কে বৃহত্তররূপে মনোসংযোগী হয়েছে।”

পোপ বলেন, “সম্মানীত বিজ্ঞানী বন্ধুগণ, এটা আপনাদের উপর ন্যস্ত একটি নয়া চ্যালেঞ্জ, এই কাজের মধ্যদিয়ে আপনারা নতুন সামাজিক বন্ধন গড়ে তুলুন, এই প্রচেষ্টা দিয়ে বিজ্ঞানের গবেষণাকে স্থানীয় এবং আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে এবং সম্মিলীতভাবে মানব সমাজের কাছে নিয়ে আসুন- যেনো বিশ্বে অবস্থিতমান সম্ভাব্য সমস্ত বিরুদ্ধচার দূরীভূত হতে পারে।” সবশেষে পোপ বলেন, “বিজ্ঞান হলো শান্তি বিনির্মাণের বড় উৎস।”

 

Add new comment

2 + 0 =