খ্রীষ্টের পরম পবিত্র দেহ ও রক্তের পার্বন উপলক্ষ্যে পোপ ফ্রান্সিস এর বাণী

খ্রীষ্টের পরম পবিত্র দেহ ও রক্তের পার্বন উপলক্ষ্যে  খ্রীষ্টযাগ  উদযাপন  কালে পোপ ফ্রান্সিস বলেন,খ্রীষ্টযাগে পরম প্রসাদের রূপান্তর যেন সারা বিশ্বের রূপান্তর ঘটায়। এই খ্রীষ্টযাগে উৎসর্গীকৃত যীশুর দেহ ও রক্ত  পরম প্রসাদ রূপে  তাঁর উপস্থিতি ও ভালোবাসা আমাদের স্মরণ করায়। জীবনের যাত্রা পথে আধ্যাত্মিক জীবন কে সঞ্জীবিত   করে ।

ভ্যাটিক্যান সংবাদ সূত্রে খবর সেন্ট পিটার্স ভ্যাসিলিকায় পুণ্যপিতা পোপ ফ্রান্সিস,কর্পাস খ্রীষ্টি উপলক্ষ্যে আয়োজিত খ্রীষ্টযাগে তাঁর উপদেশে মার্ক রচিত সুসমাচারের তিনটি চিত্রকে  খুব সুন্দর করে ব্যাখ্যা  করেন।

১ম চিত্রেঃ আমরা দেখি সেই ব্যক্তি যিনি জল   ভরা কলসি নিয়ে যীশুর শিষ্যদের পথ দেখিয়ে উপরের কক্ষে নিয়ে যেতেন।

এই চিত্র  ঈশ্বরের প্রতি আমাদের আকাঙ্ক্ষা , তৃষ্ণাও ভালোবাসাকে স্বীকৃতি দেয়। আমাদের জীবনে ঈশ্বরের প্রয়োজনীয়তা, তার ভালোবাসা অনুধাবন করতে শেখায়। বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য ও পানীয় প্রয়োজন, যতটা, তেমনি আত্মার পু্ষ্টির জন্য আধ্যাত্মিক খাদ্যের প্রয়োজন। তবে এটা লাভ করার জন্য কারও সাহায্যের প্রয়োজন হয়। তবে বর্তমান

অতি আধুনিক যুগে ঈশ্বরের  প্রতি মানুষের আগ্রহ ও তৃষ্ণা সেভাবে দেখতে পাই না।  তার জন্য তিনি চার্চকে বিশেষ ভাবে মানুষের মুখোমুখি হতে বলেছেন। ঈশ্বরের বিষয়ে জানার আগ্রহ কে বাড়াবার জন্য  সচেষ্ট হতে বলেছেন।

দ্বিতীয় চিত্রেঃ তিনি উল্লেখ করেন, যীশু তার শিষ্যদের নিয়ে নিস্তার বোঝে বসার জন্য যে ঘরটির ব্যবস্থা করা হয়েছিল,সেটি  খাবারের তুলনায় ছিল বিশাল। ভোজে  নিজেকে রুটির আকারে খণ্ড খণ্ড করে  শিষ্যদের দিয়েছিলেন। অর্থাৎ তিনি নিজেকে নত নম্র করেছিলেন।

একই ভাবে তিনি বলছেন আমরা তখন বিশালাকার গির্জার বেদিতে মিসা উৎসর্গ করি, রুটির আকারে পরমপ্রসাদ  তুলনায় ক্ষুদ্র মনে হয়।  এর মাধ্যমে পোপ বলতে চেয়েছেন, আমরা যেন খ্রীষ্টযাগে প্রতিনিধিত্ব না করি বরং আমাদের মনকে উদার করি। চার্চ মানে শুধু কোন সীমাবদ্ধ গৃহ নয়।  সকলের জন্য উন্মুক্ত , বাহুপ্রসারিত একটি সম্প্রদায়। চার্চ হল পথশ্রান্ত,ক্লান্ত, ক্ষুধার্ত মানুষের আশ্রয়স্থান।

তৃতীয় অর্থাৎ শেষ চিত্রেঃ খ্রীষ্টযাগে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যীশুর রুটি ভাঙ্গার  কথা আমাদের স্মরণ করায়। যীশু নিজের প্রাণ দিয়ে আমাদের নতুন জীবন দান করেছিলেন। রুটির আকারে তিনি স্বয়ং উপস্থিত আছেন এটা আমাদের বিশ্বাস।তখন আমরা খ্রীষ্টযাগে যোগদান করি তখন ঈশ্বরের সীমাহীন ভালবাসাকে ধারণ করি। আর দুঃখ পীড়িত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ঈশ্বরের সেই ভালোবাসাকে ছড়িয়ে দিতে পারি। তার জন্য আমাদের  আমিত্ব কে ভাঙ্গতে হবে।

পরিশেষে কর্পাস খ্রীষ্টির পবিত্র সাক্রামেন্ট নিয়ে যে শোভাযাত্রা অনুষ্ঠান আমরা করে থাকি তা আমাদের এই কথাই স্মরণ করায় আমরা যেন যীশুকে  আরও অনেকের কাছে নিয়ে যেতে পারি ও তাঁর ভালোবাসাকে আরও ছড়িয়ে দিতে পারি।

- শ্রীমতি চন্দনা রোজারিওর প্রতিবেদন

 

Add new comment

6 + 7 =